কৌশলগত পার্টনারদের থেকে সুবিধা পেতে DSE-কে আরো কার্যকরী হতে হবে

দাবিহীন এবং অবন্টিত লভ্যাংশের কোটি কোটি টাকার অনুসন্ধান করছে BSEC দাবিহীন এবং অবন্টিত লভ্যাংশের কোটি কোটি টাকার অনুসন্ধান করছে BSEC

MarketDeal24.Com – বিশেষজ্ঞরা বলছেন দক্ষতার অভাবে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (DSE) গত দুই বছর ধরে কৌশলগত পার্টনারদের সাথে যুক্ত থাকলেও এখনো কোনো প্রযুক্তিগত সুবিধা অর্জন করতে পারেনি।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জকে বর্তমান সফটওয়্যারগুলো নিয়ে কাজ করে যেতে হবে ২০২৩ সাল পর্যন্ত। কারণ বিদ্যমান সফটওয়্যারগুলোর চুক্তির মেয়াদ শেষ হবে ২০২৩ সালে। তবে এই সময়ের মধ্যে DSE-কে অবশ্যই প্রযুক্তিগত দক্ষতা অর্জন করতে হবে।

“BSEC-র সংস্কার, আইন ও বিনিয়োগকারীদের আত্মবিশ্বাস ও বাস্তবায়ন” শীর্ষক আলোচনা সভায় এ সকল বিষয় নিয়ে কথা হয়।

২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর মাসে শেনঝেন স্টক এক্সচেঞ্জ এবং সাংহাই স্টক এক্সচেঞ্জের অন্তর্ভুক্ত চাইনিজ কনসোর্টিয়াম DSE-তে কৌশলগত শেয়ারহোল্ডার হিসেবে যুক্ত হয় ২৫ শতাংশ বা ৯৪৭ কোটি টাকার শেয়ার ক্রয়ের মাধ্যমে।

Forexmart

কনসোর্টিয়াম প্রশিক্ষণ ও পরামর্শ পরিষেবা হিসেবে DSE-কে ৩৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সমমূল্যের প্রযুক্তিগত সহায়তা দেয়। যেখানে DSE সদস্যরা ২১ টাকা দরে ৪৫.০৯ কোটি শেয়ার বিক্রি করে ৯৪৭ কোটি টাকা আয় করে।

DSE-র পরিচালক মো: শাকিল রিজভী বলেন, চীনা কনসোর্টিয়াম প্রযুক্তিগত সহায়তা দেওয়ার জন্য সর্বদা প্রস্তুত থাকে তবে DSE এটি পাওয়ার জন্য প্রস্তুত নয়।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ বিদ্যমান ট্রেডিং প্ল্যাটফর্মে ব্যবহার করছে ফ্লেক্সট্রেড সিস্টেম OMS সফটওয়্যার এবং ন্যাসডাকের ট্রেড ম্যাচিং ইঞ্জিন। দুটি কোম্পানির সাথে চুক্তি ২০২৩ সালে শেষ হবে।

চীনা কনসোর্টিয়ামটি কেবল প্রযুক্তিগত সহায়তা সরবরাহের জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ, তবে ব্যাক্তিগত ভাবে ক্রয় করা শেয়ারের জন্য নয়। শাকিল রিজভী যোগ করেন, এই প্রকল্পটি প্রযুক্তিগতভাবে আরো শক্তিশালী হয়ে উঠলে বড় বিনিয়োগকারীদের সাথে সংযোগ স্থাপনে সহায়তা করবে।

বাংলাদেশ সিকিউরিটিস অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (BSEC) চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলি রুবায়াত-উল-ইসলাম বলেন, “কমিশন ইতিমধ্যে ডিএসই প্ল্যাটফর্ম পরিদর্শন করেছে এবং প্রযুক্তিগত ত্রুটি খুঁজে পেয়েছে। এবং সাম্প্রতিক সময়ে তারা সমস্যাগুলো সমাধান করার জন্য কাজ করছে।”

তিনি আরো বলেন “আমরা এখন ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন অফ বাংলাদেশ (ICB) এর ক্ষমতায়নে কাজ করছি যাতে এটি বাজারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হবে।”

বিনিয়োগকারীদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টগুলোকে কীভাবে সরাসরি তার বিও অ্যাকাউন্ট এর সাথে যুক্ত করা যায় সে বিষয়েও কাজ চলছে।

leave a reply