ADVERTISING

টেকনিক্যাল এনালাইসিস | ২০শে জুলাই, ২০২০

টেকনিক্যাল এনালাইসিস | ২০শে জুলাই, ২০২০ টেকনিক্যাল এনালাইসিস | ২০শে জুলাই, ২০২০

MarketDeal24.Com – আজ সোমবার ২০শে জুলাই, ২০২০। এই সপ্তাহের ফরেক্স মার্কেটের বিভিন্ন কারেন্সি পেয়ারের টেকনিক্যাল এনালাইসিস তুলে ধরা হলো:

EUR/USD:

চার ঘন্টার টাইম ফ্রেমে, EUR/USD পেয়ারটির প্রাইস 1.1383 সাপোর্ট লেভেলের উপরের অবস্থান করছে যেখান থেকে মূল্যবৃদ্ধি পেয়ে রেসিস্টেন্স লেভেল 1.14490 তে যেতে পারে।

সম্প্রতি আমরা দেখতে পেয়েছি যে, সাপ্তাহিক টাইম ফ্রেমে প্রাইস সর্বোচ্চ 1.2555 থেকে শুরু হওয়া ট্রেন্ড লাইন রেসিস্টেন্স এর উপরে উঠে ২০১৯ সালের ওপেনিং লেভেল 1.1445 এর সাথে মিলিত হয়েছে। সম্পূর্ণ ট্রেন্ডকে লক্ষ্য করলে বুঝা যাচ্ছে মার্চ ৯ এর সর্বোচ্চ 1.1495 কে ব্রেক না করা পর্যন্ত পেয়ারটি নিম্নমুখী থাকবে।

ডেইলি টাইম ফ্রেমে পেয়ারটি 161.8% Fibonacci extension point 1.1464 এর দিকে ধাবিত হচ্ছে এবং সর্বোচ্চ 1.1147 থেকে শুরু হওয়া চ্যানেল রেসিস্টেন্স এর আশেপাশে অবস্থান করছে।

Forexmart

বিবেচনার জায়গাগুলো:

চার ঘন্টার টাইম ফ্রেমে প্রাইস 1.1383 সাপোর্ট লেভেলের উপরে ক্লোজ হওয়ার ফলে রেসিস্টেন্স 1.14490 তে প্রাইস পরীক্ষিত হওয়ার সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়েছে। যদিও, বড় টাইম ফ্রেমে অল্প পরিমাণ মূল্য বৃদ্ধি পেতে পারে যেহেতু কাছাকাছি গুরুত্বপূর্ন রেসিস্টেন্স লেভেল থেকে এবং নিম্নমুখী ট্রেন্ড থেকে চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে।

চার ঘণ্টার টাইম ফ্রেমে সাপ্তাহিক রেসিস্টেন্স থেকে সেল নেওয়া ট্রেডাররা বর্তমানে সাপোর্ট লেভেল 1.1383 এর সম্মুখীন হয়েছে। 1.1383 কে ব্রেক করে নীচে গেলে 1.1300 লেভেলে পরীক্ষিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

GBP/USD:

GBP/USD চার ঘন্টার টাইম ফ্রেমে Quasimodo রেসিস্টেন্স 1.2653 থেকে বিপরীতমুখী হওয়ার পর থেকে নিম্নমুখী অবস্থায় আছে।

সাপ্তাহিক টাইম ফ্রেমে আমরা দেখতে পাই, টানা দুই সপ্তাহের মূল্য বৃদ্ধির পড়ে পেয়ারটির প্রাইস একটি রেসিস্টেন্স লেভেলের কাছাকাছি অবস্থান করছে, যা কিনা 61.8% Fibonacci retracement ratio 1.2718 এবং ২০১৯ সালের ওপেনিং লেভেল 1.2739 এর সমন্বয়ে গঠিত।

এদিকে ডেইলি টাইম ফ্রেমে প্রাইস বর্তমানে একটি রেসিস্টেন্স এর নীচে অবস্থান করছে, যা কিনা আগে সর্বনিম্ন 1.1409 থেকে শুরু হওয়া ট্রেন্ড লাইন সাপোর্ট লেভেল, সর্বোচ্চ 1.3514 থেকে শুরু হওয়া ট্রেন্ড লাইন রেসিস্টেন্স, 200-day SMA (orange – 1.2692) এবং রেসিস্টেন্স 1.2769 এর সমন্বয়ে গঠিত। এই রেসিস্টেন্সগুলো আবার সাপ্তাহিক রেসিস্টেন্স এর সাথে সম্পর্কিত।

চার ঘন্টার টাইম ফ্রেমে Quasimodo রেসিস্টেন্স 1.2653 থেকে মূল্য বৃদ্ধি পেয়ে প্রাইস মে এর ওপেনিং লেভেল 1.2583 এর সাথে অবস্থান করেছে এবং এইখান থেকেই বিপরীতমুখী হয়েছে। এখন 1.26 লেভেলটি বর্তমান প্রাইসের উপরে অবস্থান করছে। সাপোর্ট হিসেবে পরবর্তী টার্গেট 1.25 লেভেল ।

বিবেচনার জায়গাগুলো:

1.2583 রেসিস্টেন্স প্রাইসকে নিম্নমুখী রাখার ক্ষেত্রে চাপ প্রয়োগ করছে মে এর ওপেনিং লেভেল ও নিম্নমুখী ট্রেন্ড লাইনের সাথে একত্রিত হয়ে। 1.26/1.2583 এর নীচে মূল্য পরীক্ষিত হলে সাপোর্ট লেভেল 1.2500 তে নেমে যেতে পারে প্রাইস।

AUD/USD:

AUD/USD পেয়ারটি একটি গুরুত্বপূর্ন লেভেল 0.70 এর নীচে অবস্থান করছে। এই লেভেলটিকে ব্রেক করে উপরে উঠলে সেলাররা মার্কেট ত্যাগ করবে এবং বায়াররা মার্কেটে এসে মূল্য বৃদ্ধি করে Quasimodo রেসিস্টেন্স লেভেল 0.7042 এর দিকে ধাবিত হবে।

সাপ্তাহিক টাইম ফ্রেমে AUD/USD পেয়ারটিতে এই সপ্তাহে রেসিস্টেন্স হিসেবে কাজ করবে ২০২০ সালের ওপেনিং লেভেল 0.7016 এবং ২০১৯ সালের ওপেনিং লেভেল 0.7042। কিছু ট্রেডার খেয়াল করতে পারে যে উপরে উল্লেখিত রেসিস্টেন্স এর উপরে রয়েছে 61.8% Fibonacci retracement ratio 0.7128 (green)। সাপ্তাহিক টাইম ফ্রেমে সাপোর্ট হিসেবে কাজ করবে 0.6677 লেভেলটি।

ডেইলি টাইম ফ্রেমে প্রাইস Quasimodo রেসিস্টেন্স 0.7049 এর নীচে পরীক্ষিত হয়েছে, যা কিনা সর্বনিম্ন 0.6670 থেকে নেওয়া ট্রেন্ড লাইন সাপোর্ট (বর্তমানে রেসিস্টেন্স) এর সাথে যুক্ত হয়ে আছে। এছাড়া ডেইলি টাইম ফ্রেমে সাপোর্ট হিসেবে কাজ করবে 0.6751 এবং 200-day SMA (orange – 0.6673)।

বিবেচনার জায়গাগুলো:

প্রাইস বর্তমানে 0.70 এর নীচে অবস্থান করছে এবং এর আশেপাশে যেহেতু কোন সাপোর্ট লেভেল নাই তাই আশা করা যায় ব্রেক আউট ক্যান্ডেল ক্লোজ হওয়ার আগে মার্কেটে আরো সেল বৃদ্ধি পাবে এবং প্রাইস হ্রাস পাবে। চার ঘন্টার টাইম ফ্রেমে রেসিস্টেন্স হিসেবে 0.70 তে চার ঘন্টার বিয়ারিশ ক্যান্ডেল স্টিক তৈরি করে মূল্য পরীক্ষিত হলে প্রাইস হ্রাস আরো হ্রাস পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে এবং চার ঘন্টার সাপোর্ট 0.6930 এর আশেপাশে চলে যাবে।

USD/JPY:

শুক্রবারে জাপানিজ ইয়েনের বিপরীতে মার্কিন ডলার শক্তিশালী অবস্থানে ছিলো, যেহেতু মার্কেটের রিস্ক সেন্টিমেন্ট এর কারণে মার্কিন ডলার ইনডেক্স ও বৃদ্ধি পেয়েছিলো।

USD/JPY পেয়ারটি চার ঘন্টার টাইম ফ্রেমে মে এর ওপেনিং লেভেল 107.12 এবং 107 হ্যান্ডেলকে ব্রেক করে নীচে নেমে গেছে, যার ফলে Quasimodo সাপোর্ট 106.66 তে যাওয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু প্রাইস নীচে নামতে ব্যর্থ হওয়ার পরে 107 হ্যান্ডেলে আবার পরীক্ষিত হয়েছে। 107 হ্যান্ডেলের নীচে প্রাইস ব্রেক করলে পরবর্তী টার্গেট হবে Quasimodo সাপোর্ট 106.66।

সাপ্তাহিক টাইম ফ্রেমে প্রাইস বর্তমানে ২০২০ সালের ওপেনিং লেভেল 108.62 এর নীচে অবস্থান করছে। সাপোর্ট হিসেবে রয়েছে ৬ই মে এর সর্বনিম্ন 105.98 এবং তারো নীচে রয়েছে সাপোর্ট 104.70। ডেইলি টাইম ফ্রেমে টেকনিক্যাল এনালাইসিস অনুযায়ী এখনো সবার নজর Quasimodo সাপোর্ট 106.35 এবং 200-day SMA (orange – 108.36) তে রয়েছে।

বিবেচনার জায়গাগুলো:

টেকনিক্যাল এনালাইসিস অনুযায়ী 107 হ্যান্ডেল এবং 107.12 অনেক দুর্বল সাপোর্ট। তাই এই সাপোর্ট দুইটি সহজেই ব্রেক হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে এবং প্রাইস Quasimodo সাপোর্ট 106.66 তে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

USD/CAD:

USD/CAD পেয়ারটি 1.36 এর উপরে ক্লোজ করতে ব্যার্থ হয়েছে এবং জুলাই এর ওপেনিং লেভেলে অবস্থান করছে বর্তমানে। এর কারণ হলো প্রত্যাশার চেয়ে ভালো খুচরা বিক্রির তথ্য প্রকাশিত হলে হতাশাজনক বেকারত্বের খবর মার্কিন ডলারের উপর প্রভাব ফেলতে পারেনি এবং তেলের মূল্য হ্রাস পাওয়ায় কানাডিয়ান ডলারের মূল্য হ্রাস পেয়েছে।

প্রাইস বর্তমানে জুলাই এর ওপেনিং লেভেলে পরীক্ষিত হচ্ছে। গুরুত্বপূর্ন লেভেলে 1.36 কে ব্রেক করলে প্রাইস Quasimodo রেসিস্টেন্স 1.3631 তে পরীক্ষিত হতে পারে, এমনকি পরবর্তী Quasimodo রেসিস্টেন্স 1.3670 তে পরীক্ষিত হতে পারে। অন্যদিকে প্রাইস 1.36 কে ব্রেক করতে ব্যর্থ হলে চার ঘন্টার টাইম ফ্রেমে 1.35 লেভেলে নেমে যেতে পারে।

সাপ্তাহিক টাইম ফ্রেমে প্রাইস বর্তমানে ২০১৭ সালের ওপেনিং লেভেল 1.3434 এর উপরে অবস্থান করছে। 1.3434 এর নীচে সর্বনিম্ন 1.2061 থেকে শুরু হওয়া চ্যানেল সাপোর্ট রয়েছে। USD/CAD এর বায়িং বৃদ্ধি পেলে ২০১৬ সালের ওপেনিং লেভেল 1.3814 কে চ্যালেঞ্জ করবে রেসিস্টেন্স হিসেবে এবং এই লেভেলকে অতিক্রম করতে পারলে 1.4190/1.3912 অঞ্চলকে টার্গেট করবে।

ডেইলি টাইম ফ্রেমে প্রাইস একটু নিম্নমুখী দেখা গেলেও 200-day SMA (1.3507) এর উপরে এখনো প্রাইস ধরে রাখতে পেরেছে। রেসিস্টেন্স 1.3807 কে টেক প্রফিট পয়েন্ট হিসেবে ধরা হয়েছে, যার পরে আরো একটি রেসিস্টেন্স 1.3867 রয়েছে।

বিবেচনার জায়গাগুলো:

চার ঘন্টার টাইম ফ্রেমে আমরা গুরুত্বপূর্ন একটি রেসিস্টেন্স লেভেল 1.36 কে পর্যবেক্ষন করছি। এই রেসিস্টেন্স ব্রেক করলে প্রাইস পরবর্তী রেসিস্টেন্স 1.3631 এবং 1.37 এর দিকে ধাবিত হতে পারে।

অন্যদিকে 1.36 কে ব্রেক করে উপরে যেতে ব্যর্থ হলে সেলাররা মার্কেটে প্রবেশ করবে এবং প্রাইসকে 1.35 অরথবা সাপ্তাহিক সাপোর্ট 1.3434 তে নিয়ে যাবে।

USD/CHF:

USD/CHF পেয়ারটি জুলাই এর ওপেনিং লেভেল 0.9470 থেকে নীচে নেমে সম্প্রতি 0.9400 এর নীচে নেমে গিয়েছে যেহেতু মার্কিন ডলার দুর্বল অবস্থানে রয়েছে। প্রাইস বর্তমানে 0.9363 এর দিকে যাচ্ছে সাপোর্ট এর আশায়।

বড় টাইম ফ্রেমে দেখা যাচ্ছে যে প্রাইস সাপ্তাহিক রেসিস্টেন্স 0.9447 এর নীচে নেমে গেছে এবং বর্তমানে এই লেভেলে প্রাইস পরীক্ষিত হচ্ছে।

বিবেচনার জায়গাগুলো:

শুক্রবার যেহেতু প্রাথমিক নিম্নমুখী টার্গেট 0.9400 তে প্রাইস নেমে গিয়েছে, এখন পেয়ারটির মূল্য 0.9363 তে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে অনেক। আর এই লেভেলটি ব্রেক হলে পরবর্তী টার্গেট হবে Quasimodo সাপোর্ট 0.9324।

XAU/USD (GOLD):

চার ঘণ্টার চার্টে, XAU/USD পেয়ারটির প্রাইস নিম্নমুখী হয়ে আমাদের নিম্নমুখী ট্রেন্ড ব্রেক করেছে রেসিস্টেন্স 1815.00 থেকে বিপরীতমুখী হয়ে। পরবর্তী সাপোর্ট লেভেল হিসেবে টার্গেট করা হচ্ছে 1791.70 কে।

সাপ্তাহিক টাইম ফ্রেমে, পেয়ারটির প্রাইস Quasimodo রেসিস্টেন্স 1787.4 (বর্তমানে সাপোর্ট) এর উপরে অবস্থান করছে। তবে বর্তমান ট্রেন্ড লাইনকে অনুসরণ করে মূল্য বৃদ্ধি পেতে থাকলে রেসিস্টেন্স 1882.7 তে যেতে পারে। এছাড়া সাপ্তাহিক টাইমফ্রেমে আকর্ষণীয় ব্যাপার হলো 1451.4/1703.2 এর মধ্যে একটি নিম্নমুখী ওয়েজ প্যাটার্ন রয়েছে। বড় টাইম ফ্রেমে বুলিশ পরিস্থিতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। 1815.00 কে অতিক্রম করতে পারলে ডেইলি Quasimodo রেসিস্টেন্স 1841.00 তে যেতে পারে প্রাইস।

বিবেচনার জায়গাগুলো:

1791.7 তে পরীক্ষিত হওয়ার পরে বায় নেওয়া ট্রেডাররা 161.8% H4 Fibonacci extension point 1815.3 থেকে কিছুটা মুনাফা অর্জন করতে পারে।

এদিকে বড় টাইম ফ্রেমে প্রাইস উপরের দিকে যাওয়ার ব্যাপারে নির্দেশ করছে, যেখানে 1791.70 এর উপরে অতিরিক্ত বায়িং হতে পারে।

ফরেক্স মার্কেট: বেড়েই চলেছে করোনা সংক্রমণ; EU বৈঠক নিয়ে অস্থিতিশীল বাজার