টেকনিক্যাল এনালাইসিস | ২২শে জুলাই, ২০২০

টেকনিক্যাল এনালাইসিস | ২২শে জুলাই, ২০২০ টেকনিক্যাল এনালাইসিস | ২২শে জুলাই, ২০২০

EUR/USD:

মঙ্গলবারে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন কতৃক বিশাল প্রণোদনার ঘোষণা দেওয়ার পরে মার্কিন ডলারের বিপরীতে অনেক শক্তিশালী অবস্থান নেয় ইউরো। এছাড়া মার্কেটে রিস্ক সেন্টিমেন্ট বৃদ্ধি পাওয়ায় EUR/USD পেয়ারটি কালকে বৃদ্ধি পেয়ে 1.15 এর উপরে উঠে যায়।

টেকনিক্যাল এনালাইসিস অনুসারে আমরা সাপ্তাহিক রেসিস্টেন্স বা ২০১৯ সালের ওপেনিং লেভেলের উপরে অবস্থান করছি। আজকে যদি প্রাইস আবারো বৃদ্ধি পায় তাহলে ঊর্ধ্বমুখী টার্গেট হিসেবে 1.1733 কে ধরা হবে।

ডেইলি টাইমফ্রেমে প্রাইস সম্প্রতি সর্বোচ্চ 1.1147 থেকে নেওয়া চ্যানেল রেসিস্টেন্স এর উপরে অবস্থান করছে। যার ফলে Quasimodo রেসিস্টেন্স 1.1594 তে যাওয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পেয়েছে।

চার ঘন্টার টাইমফ্রেমে সর্বনিম্ন 1.1254 থেকে শুরু হওয়া ট্রেন্ড লাইন সাপোর্ট থেকে মূল্য বৃদ্ধি পেয়ে 1.15 কে অতিক্রম করে 1.1531 এর দিকে ধাবিত হচ্ছে। এই লেভেল থেকে উপরে উঠলে 1.16 কে টার্গেট করা হবে।

Forexmart

বিবেচনার জায়গাগুলো:

চার ঘন্টার টাইম ফ্রেমে 1.1531 কে অতিক্রম করলে বায়াররা আজকে মার্কেটে প্রবেশ করবে। যদিও রক্ষণশীল বায়াররা অপেক্ষা করবে যে মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ার আগে সাপোর্ট হিসেবে 1.1531 তে পরীক্ষিত হয় কিনা। সেক্ষেত্রে পরবর্তী টার্গেট হিসেবে কাজ করবে 1.1594 লেভেলটি।

GBP/USD:

মঙ্গলবারে মার্কিন ডলারের বিপরীতে ব্যাপক মূল্যবৃদ্ধি পেয়েছে ব্রিটিশ স্টার্লিং এর, যেহেতু মার্কিন ডলার ইনডেক্স 95.00 হ্যান্ডেলে নেমে গিয়েছে। চার ঘন্টার টাইম ফ্রেমে সাপোর্ট লেভেল 1.2653 তে পরীক্ষিত হওয়ার পরে প্রাইস 1.27 এর উপরে উঠে যায়। যদিও কিছুটা বিয়ারিশ পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে পরে মার্কিন সেশনে প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে রেসিস্টেন্স 1.2796 তে মিলিত হয়েছে, যা কিনা 1.28 হ্যান্ডেল এবং 161.8% Fibonacci extension point 1.2808 এর ঠিক নীচেই অবস্থান করছে।

এদিকে, সাপ্তাহিক টাইম ফ্রেমে প্রাইস ২০১৯ সালের ওপেনিং লেভেল 1.2739 এর উপরে নিজের জায়গা ধরে রাখার চেষ্টা করছে এবং সর্বোচ্চ 1.5930 থেকে নেওয়া দীর্ঘ মেয়াদী ট্রেন্ড লাইন রেসিস্টেন্স এর দিকে নজর রাখছে।

টেকনিক্যাল এনালাইসিস অনুযায়ী কালকের ডেইলি ক্যান্ডেল 200-day SMA (orange – 1.2697) থেকে রেসিস্টেন্স 1.2769 এর দিকে যাচ্ছে। এর পরে রেসিস্টেন্স হিসেবে রয়েছে 1.2840 লেভেল, সর্বনিম্ন 1.1409 থেকে নেওয়া ট্রেন্ড লাইন সাপোর্ট ( বর্তমানে রেসিস্টেন্স)

বিবেচনার জায়গাগুলো:

বর্তমানে মার্কেট এর গতিবিধি অনুযায়ী আমাদের ডেইলি রেসিস্টেন্স 1.2769 তে যাওয়া দরকার যেহেতু কিছু ট্রেডাররা এইখান থেকে লাভ অর্জন করতে চাচ্ছে। যাইহোক এটাই চার ঘন্টার টাইম ফ্রেমে প্রাইসকে 1.27 সাপোর্ট লেভেলে নিয়ে আসতে পারে।

চার ঘন্টার ট্রেডাররা রেসিস্টেন্স হিসেবে 1.28 হ্যান্ডেল কে টার্গেট করবে।

AUD/USD:

AUD/USD পেয়ারটি কালকে শক্তিশালী ভাবে মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে যেহেতু মার্কিন ডলারের মূল্য হ্রাস পেয়েছে এবং রিজার্ভ ব্যাংক অব অস্ট্রেলিয়া থেকে ইতিবাচক সংবাদ পাওয়া গেছে।

চার ঘন্টার টাইম ফ্রেমে 0.71 কে ক্লিয়ার করার পরে ট্রেডাররা Quasimodo রেসিস্টেন্স 0.7193 এর দিকে নজর দিবে, যা কিনা 0.72 এর ঠিক নীচেই অবস্থান করছে। তবে 0.72 তে পৌঁছানোর আগে ডেইলি Quasimodo রেসিস্টেন্স 0.7168 কে দেখা যেতে পারে। এছাড়া সবাই সাপ্তাহিক রেসিস্টেন্স 0.7147 এর প্রতি নজর রাখবে।

বিবেচনার জায়গাগুলো:

চার ঘন্টার টাইম ফ্রেমে ট্রেডাররা 0.71 কে ব্রেক করলে উপরে গেলেও সাপ্তাহিক ও ডেইলি রেসিস্টেন্স 0.7147 এবং 0.7168 বাধা দিতে পারে বাই এর খেত্রে। যার ফলে প্রাইস 0.71 তে নেমে যাবে।

0.71 এর নীচে, সেলারদের টার্গেট হিসেবে থাকবে ডেইলি সাপোর্ট 0.7049, এর পরেই রয়েছে চার ঘন্টার সাপোর্ট 0.7042।

USD/JPY:

USD/JPY পেয়ারটি 107 এর উপর থেকে নীচে নেমে গিয়েছে যেহেতু মার্কিন ডলার ইনডেক্স এর মান 95.00তে নেমে আসছে। মে এর ওপেনিং লেভেল 107.12 কে অতিক্রম করে নীচে নামার পরে Quasimodo সাপোর্ট 106.66 এর দিকে প্রাইস ধাবিত হতে পারে। এই লেভেলটি ব্রেক করলে 106 হ্যান্ডেলে চলে যাবে।

সাপ্তাহিক টাইমফ্রেমে প্রাইস বর্তমানে ২০২০ সালের ওপেনিং লেভেল 108.62 এর নীচে অবস্থান করছে। সাপোর্ট হিসেবে রয়েছে ৬ই মে এর সর্বনিম্ন 105.98 এবং তারো নীচে রয়েছে সাপোর্ট 104.70। ডেইলি টাইম ফ্রেমে টেকনিক্যাল এনালাইসিস অনুযায়ী এখনো সবার নজর Quasimodo সাপোর্ট 106.35 এবং 200-day SMA (orange – 108.36) তে রয়েছে।

বিবেচনার জায়গাগুলো:

চার ঘন্টার সাপোর্ট 106.66 থেকে মূল্য পুনরুদ্ধার হওয়ার পরে উক্ত লেভেলের ইতিহাস দেখলে বুঝা যায় এই লেভেলটি আজকে কার্যকর থাকতে পারে। এই লেভেল অতিক্রম করলে মার্কেটে সেলাররা প্রবেশ করবে এবং মূল্য Quasimodo সাপোর্ট 106.35 তে নেমে যেতে পারে।

107 তে মূল্য পরীক্ষিত হলে মে এর ওপেনিং লেভেল 107.12 তে ফেক আউট হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

USD/CAD:

WTI এর মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় এবং মার্কিন ডলার ইনডেক্সের মূল্য হ্রাস পাওয়ায় USD/CAD পেয়ারটির মূল্য হ্রাস পেয়ে 1.35 এর নীচে অবস্থান করছে। এর ফলে চার ঘন্টার ক্যান্ডেল এখন 1.34 এবং 161.8% Fibonacci extension point 1.3409 এর সাথে অবস্থান করছে। এর নীচে ট্রেডারদের নজর থাকবে Quasimodo সাপোর্ট 1.3356 তে।

সাপ্তাহিক টাইম ফ্রেমে প্রাইস বর্তমানে ২০১৭ সালের ওপেনিং লেভেল 1.3434 এর উপরে অবস্থান করছে। 1.3434 এর নীচে সর্বনিম্ন 1.2061 থেকে শুরু হওয়া চ্যানেল সাপোর্ট রয়েছে। USD/CAD এর বায়িং বৃদ্ধি পেলে ২০১৬ সালের ওপেনিং লেভেল 1.3814 কে চ্যালেঞ্জ করবে রেসিস্টেন্স হিসেবে এবং এই লেভেলকে অতিক্রম করতে পারলে 1.4190/1.3912 অঞ্চলকে টার্গেট করবে।

ডেইলি টাইম ফ্রেমে মঙ্গলবারে প্রাইস 200-day SMA (orange – 1.3512) কে অতিক্রম করে সাপোর্ট লেভেল 1.3303 এর দিকে ধাবিত হয়েছে। 200-day SMA এর নীচে ক্লোজ হলে মার্কেট সাধারনত বিয়ারিশ ধরে নেওয়া হয়।

বিবেচনার জায়গাগুলো:

যদিও USD/CAD পেয়ারটি 200-day SMA (1.3512) কে অতিক্রম করে নীচে নেমে গেছে কিন্তু সাপ্তাহিক প্রাইস সাপোর্ট লেভেল 1.3434 তে ট্রেড করছে, যার ফলে বায়াররা মার্কেটে প্রবেশ করতে পারে।

এর ফলে আমরা দেখতে পারি যে, 1.34 কে পিছনে ফেলে বায়াররা আজকে মার্কেটে প্রবেশ করতে পারে। অন্যদিকে সেলাররা SMA এর নীচে থেকে মার্কেটের দখল নিতে পারে।

USD/CHF:

USD/CHF পেয়ারটি এই সপ্তাহে 0.94 এর নীচে কিছুটা নিম্নমুখী অবস্থায় দিন শুরু করেছে এবং সর্বনিম্ন 0.9362 থেকে নেওয়া ট্রেন্ড লাইন সাপোর্ট এ পরীক্ষিত হয়েছে চার ঘণ্টার টাইম ফ্রেমে। তবে সম্প্রতি বায়াররা কিছুটা সতর্ক হয়ে প্রাইস 0.94 এর উপরে নিয়ে গেছে এবং জুলাই এর ওপেনিং লেভেল 0.9470 রেসিস্টেন্স হিসেবে কাজ করছে। অন্যদিকে উপরে উল্লেখিত ট্রেন্ড লাইন সাপোর্ট ব্রেক করলে প্রাইস Quasimodo সাপোর্ট 0.9324 তে চলে যেতে পারে।

আজকে সকালের চার ঘন্টার চার্ট দেখলে বুঝা যায় যে প্রাইস উপরে উল্লেখিত ট্রেন্ড লাইন সাপোর্টকে অতিক্রম করে Quasimodo সাপোর্ট 0.9342 তে মিলিত হয়েছে। যদিও আজকে মূল্য কিছুটা পুনরুদ্ধার করার চেষ্টা করা যেতে পারে, তবে তেমন সাপোর্ট পাওয়া যাবে না। বড় টাইমফ্রেমে 0.93 কে ব্রেক করে নীচে নেমে যাওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি।

বিবেচনার জায়গাগুলো:

যেসব ট্রেডাররা বাই নিবে তারা ব্রেক ইভেনের ঝুকি কমিয়ে চার ঘন্টার Quasimodo সাপোর্ট 0.9324 থেকে কিছুটা মুনাফা অর্জন করতে পারবে। পরবর্তী টেক প্রফিট পয়েন্ট হিসেবে থাকবে 0.93। এই লেভেলটি ব্রেক করলে সাপ্তাহিক Quasimodo সাপোর্ট 0.9255 তে নেমে যাবে প্রাইস। চার ঘন্টার টাইম ফ্রেমে 0.93 এর নীচে ক্লোজ হলে মার্কেট আরো বিয়ারিশ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

XAU/USD (GOLD):

মঙ্গলবারে মার্কিন ডলারের দুর্বল অবস্থানের কারণে XAU/USD পেয়ারটি বৃদ্ধি পেয়ে কয়েক বছরের সর্বোচ্চ লেভেল 1847.6 তে পৌছায়।

সাপ্তাহিক টাইমফ্রেমে, পেয়ারটির প্রাইস Quasimodo রেসিস্টেন্স 1787.4 (বর্তমানে সাপোর্ট) এর উপরে অবস্থান করছে। তবে বর্তমান ট্রেন্ড লাইনকে অনুসরণ করে মূল্য বৃদ্ধি পেতে থাকলে রেসিস্টেন্স 1882.7 তে যেতে পারে। এছাড়া সাপ্তাহিক টাইমফ্রেমে আকর্ষণীয় ব্যাপার হলো 1451.4/1703.2 এর মধ্যে একটি নিম্নমুখী ওয়েজ প্যাটার্ন রয়েছে।

ডেইলি টাইমফ্রেম অনুযায়ী, সম্প্রতি আমরা Quasimodo রেসিস্টেন্স 1841.0 এর সাথে মিলিত হয়েছি। এই লেভেলটি অতিক্রম করতে পারলে সাপ্তাহিক রেসিস্টেন্স 1882.7 তে প্রাইস যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

বড় টাইমফ্রেমে প্রাইস কিছুটা নীচে নেমে গেলেও চার ঘন্টার টাইম ফ্রেমে খুবই শক্তিশালী ভাবে দুইটি রেসিস্টেন্স 1822.8 এবং 1835.8 কে অতিক্রম করেছে। দুইটি লেভেলই বর্তমানে সাপোর্ট হিসেবে কাজ করছে। বর্তমান ক্যান্ডেল দেখে মনে হচ্ছে একটি শুটিং স্টার ক্যান্ডেল তৈরি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

বিবেচনার জায়গাগুলো:

সাপ্তাহিক টাইমফ্রেমে বুলিশ অবস্থা আশা করা হচ্ছে, যেখানে ডেইলি টাইম ফ্রেমে Quasimodo রেসিস্টেন্স 1841.0 তে প্রাইস অবস্থান করতে পারে। ডেইলি রেসিস্টেন্স থাকলেও চার ঘন্টার ট্রেডাররা 1835.8 থেকে সাপোর্ট পেতে পারে।

ডেইলি Quasimodo রেসিস্টেন্সকে অতিক্রম করতে পারলে পেয়ারটির মূল্য 161.8% H4 Fibonacci extension point 1856.3 তে যেতে পারে, যার পরে রয়েছে সাপ্তাহিক রেসিস্টেন্স 1882.7।

তেলের মূল্যমান নিম্নমুখী; Brent oil futures হ্রাস পেয়েছে 0.47%

  • ইউরোপের শেয়ার বাজারে মিশ্র অবস্থা; নেপথ্যে অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার তহবিল
    জুলা ২২, ২০২০

leave a reply