টেকনিক্যাল এনালাইসিস | ২৩শে জুলাই, ২০২০

EUR/USD:

বুধবারে মার্কিন ডলারের বিপরীতে ইউরোর মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে যেহেতু ইউরোর চাহিদা বৃদ্ধি পেয়েছে এবং মার্কিন ডলার ইনডেক্স 95.00 হ্যান্ডেলের নীচে নেমে গেছে। ইউরোপিয়ান কেন্দ্রীয় ব্যাংকের লাগার্দে জানিয়েছেন ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের তহবিল নিয়ে সে সন্তুষ্ট।

টেকনিক্যাল অনুসারে চার ঘন্টার প্রাইস 1.16 হ্যান্ডেলের দিকে এগিয়ে চলছে, যা কিনা Quasimodo রেসিস্টেন্স 1.1610 এর নীচে অবস্থান করছে। 1.16 এর নীচে নেমে গেলে সাপোর্ট হিসেবে প্রথমে টার্গেট করা হবে 1.1531 কে। এর নীচে সাপোর্ট হিসেবে রয়েছে সর্বনিম্ন 1.1254 থেকে নেওয়া ট্রেন্ড লাইন সাপোর্ট এবং 1.15 হ্যান্ডেল।

এদিকে সাপ্তাহিক টাইমফ্রেমে, প্রাইস ২০১৯ সালের ওপেনিং লেভেল 1.1445 এর উপরে বৃদ্ধি পেয়ে যাচ্ছে। আপাতত মার্কেট বায়ারদের দখলে রয়েছে এবং পরবর্তীতে Quasimodo রেসিস্টেন্স 1.1733 কে টার্গেট করা হতে পারে।

ডেইলি টাইমফ্রেমে সম্প্রতি প্রাইস সর্বোচ্চ 1.1147 থেকে নেওয়া চ্যানেল রেসিস্টেন্সকে অতিক্রম করে Quasimodo রেসিস্টেন্স 1.1594 এর সাথে মিলিত হয়েছে। এর পরে উপরে উল্লেখিত Quasimodo রেসিস্টেন্স 1.1733 পর্যন্ত তেমন শক্তিশালী কোনো রেসিস্টেন্স নেই।

Forexmart

বিবেচনার জায়গাগুলো:

1.16 থেকে সেল নেওয়া ট্রেডাররা বর্তমানে লাভজনক অবস্থায় আছে ডেইলি Quasimodo রেসিস্টেন্স 1.1594 এর কারণে। এখন প্রশ্ন হলো সেলারদের কি এতোটা শক্তি আছে যে তারা চার ঘন্টার সাপোর্ট 1.1531 তে মূল্য নিয়ে যাবে।

আজকে 1.1531 তে প্রাইস যেতে পারে। রক্ষণশীল বায়াররা অপেক্ষা করবে যে 1.1531 কে অতিক্রম করে 1.15 থেকে একটা ফেক আউট হবে।

এদিকে চার ঘন্টার টাইমফ্রেমে Quasimodo রেসিস্টেন্স 1.1610 এর উপরে ক্লোজ হলে ব্রেক আউট বায়াররা মার্কেটে প্রবেশ করবে এবং 1.17 তে নিয়ে যাবে প্রাইস।

GBP/USD:

বুধবার লন্ডন সেশনে মার্কিন ডলারের বিপরীতে ব্রিটিশ পাউন্ড চাপের মধ্যে পড়ে এবং চার ঘন্টার টাইম ফ্রেমে 1.27 থেকে নীচে নেমে সাপোর্ট 1.2653 এর দিকে চলে যায় প্রাইস। যদিও মার্কিন সেশনে আবার মূল্য পুনরুদ্ধার করে 1.27 এর উপরে উঠে যায় এবং ইউরোপিয়ান সেশনে একই অবস্থায় থাকে। উপরের দিকে 1.2796 তে রেসিস্টেন্স দেখা যাচ্ছে, যা কিনা 1.28 হ্যান্ডেল এবং 161.8% Fibonacci extension point 1.2808 এর ঠিক নিচেই অবস্থান করছে।

সাপ্তাহিক টাইমফ্রেমে প্রাইস বর্তমানে ২০১৯ সালের ওপেনিং লেভেল 1.2739 এর নীচে অবস্থান করছে সর্বোচ্চ 1.5930 থেকে নেওয়া দীর্ঘ মেয়াদী ট্রেন্ড লাইন রেসিস্টেন্সকে ব্রেক করে।

টেকনিক্যাল এনালাইসিস অনুযায়ী কালকের ডেইলি ক্যান্ডেল 200-day SMA (orange – 1.2697) থেকে রেসিস্টেন্স 1.2769 এর দিকে যাচ্ছে। এর পরে রেসিস্টেন্স হিসেবে রয়েছে 1.2840 লেভেল, সর্বনিম্ন 1.1409 থেকে নেওয়া ট্রেন্ড লাইন সাপোর্ট (বর্তমানে রেসিস্টেন্স)।

বিবেচনার জায়গাগুলো:

সাপ্তাহিক প্রাইস ২০১৯ সালের ওপেনিং লেভেল 1.2739 এর নীচে অবস্থান করায় এবং ডেইলি প্রাইস রেসিস্টেন্স 1.2769 কে অতিক্রম করতে ব্যার্থ হওয়ায় আজকে 1.27 এর উপরে বায়ারদের টিকে থাকতে অনেক কষ্ট হবে।

চার ঘন্টার টাইমফ্রেমে 1.27 বা সাপোর্ট লেভেল 1.2653 এর নীচে ক্লোজ হলে বিয়ারিশ অবস্থার সৃষ্টি হবে এবং ব্রেক আউট সেলাররা মার্কেটে প্রবেশ করবে।

AUD/USD:

মঙ্গলবারে 1.6% বৃদ্ধি পাওয়ার পরে বুধবারে সর্বোচ্চ 0.7182 লেভেলে যায় পেয়ারটির প্রাইস, যা কিনা ২০১৯ সালের এপ্রিলের পরে সর্বোচ্চ পর্যায়।

চার ঘন্টার টাইমফ্রেমে Quasimodo রেসিস্টেন্স 0.7193 এবং 0.72 হ্যান্ডেলের উপরে কিছুটা জায়গা রয়েছে পেয়ারটির জন্য। যদিও মূল্য হ্রাস অব্যাহত থাকলে আজকে 0.71 তে পরীক্ষিত হতে পারে, যা কিনা একটি সাইকোলজিক্যাল লেভেল এবং সর্বোচ্চ 0.6997 থেকে নেওয়া চ্যানেল রেসিস্টেন্স (বর্তমানে সাপোর্ট) এর ঠিক নীচেই অবস্থিত। এর নীচে ট্রেডাররা সাপোর্ট হিসেবে 0.7042 এর প্রতি নজর রাখবে।

সাপ্তাহিক প্রাইস ২০২০ সালের ওপেনিং লেভেল 0.7016 এবং ২০১৯ সালের ওপেনিং লেভেল 0.7042 কে অতিক্রম করে রেসিস্টেন্স 0.7147 তে পৌঁছেছে। এদিকে ডেইলি প্রাইস Quasimodo রেসিস্টেন্স 0.7168 থেকে শুটিং স্টার ক্যান্ডেলস্টিক প্যাটার্ন তৈরি করেছে।

বিবেচনার জায়গাগুলো:

সাপ্তাহিক রেসিস্টেন্স 0.7147 ও ডেইলি রেসিস্টেন্স 0.7168 থাকার পরেও আজকে মূল্য উপরের দিকে যাওয়ার চেষ্টা করবে।

এছাড়া চার ঘন্টার টাইমফ্রেমে 0.71 বা চ্যানেল সাপোর্টে পরীক্ষিত হওয়ার সুযোগ রয়েছে। তবে চার ঘন্টার টাইমফ্রেমে 0.71 এর নীচে ক্লোজ হলে বড় টাইমফ্রেমে প্রাইস ডেইলি সাপোর্ট 0.7049 তে নেমে যেতে পারে।

USD/JPY:

জুলাই এর প্রথম থেকেই চার ঘন্টার ক্যান্ডেল 106.74-107.40 এর মধ্যে অবস্থান করছে, যার মধ্যে 107 হ্যান্ডেল রয়েছে। এই রেঞ্জের বাহিরে জুনের ওপেনিং লেভেল 107.73 এবং 106 হ্যান্ডেলের প্রতি নজর রয়েছে।

সাপ্তাহিক টাইমফ্রেমে প্রাইস বর্তমানে ২০২০ সালের ওপেনিং লেভেল 108.62 এর নীচে অবস্থান করছে। সাপোর্ট হিসেবে রয়েছে ৬ই মে এর সর্বনিম্ন 105.98 এবং তারো নীচে রয়েছে সাপোর্ট 104.70। ডেইলি টাইম ফ্রেমে টেকনিক্যাল এনালাইসিস অনুযায়ী এখনো সবার নজর Quasimodo সাপোর্ট 106.35 এবং 200-day SMA (orange – 108.36) তে রয়েছে।

বিবেচনার জায়গাগুলো:

চার ঘন্টার প্রাইস যেহেতু 106.74-107.40 রেঞ্জের মধ্যে অবস্থান করছে আজকে প্রাইস কিছুটা হ্রাস পেয়ে 107 হ্যান্ডেলে যেতে পারে। যদিও এই লেভেল থেকে ব্রেক আউট হলে প্রাইস বৃদ্ধি পেয়ে জুনের ওপেনিং লেভেল 107.73 তে যেতে পারে এবং মার্কেট বুলিশ হতে পারে।

USD/CAD:

দিনের শুরুতে মার্কিন ডলার কিছুটা মূল্য পুনরুদ্ধার করলেও বুধবারে কানাডিয়ান ডলারের বিপরীতে টানা তৃতীয় দিনের মতো মূল্য হ্রাস পেয়েছে। মার্কিন ডলার ইনডেক্স হ্রাস পেয়ে 95.00 এর নীচে নেমে গেছে, অন্যদিকে WTI এর মূল্য কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে। যার ফলে USD/CAD এর প্রাইস 1.34 এর কাছাকাছি 161.8% H4 Fibonacci extension support 1.3409 তে নেমে গিয়েছে। এই লেভেল থেকে নীচে নেমে গেলে সবার নজর থাকবে Quasimodo সাপোর্ট 1.3356 এর দিকে, যার পরে রয়েছে আরো একটি Quasimodo সাপোর্ট 1.3343।

সাপ্তাহিক টাইম ফ্রেমে প্রাইস বর্তমানে ২০১৭ সালের ওপেনিং লেভেল 1.3434 তে অবস্থান করছে। 1.3434 এর নীচে সর্বনিম্ন 1.2061 থেকে শুরু হওয়া চ্যানেল সাপোর্ট রয়েছে। USD/CAD এর বায়িং বৃদ্ধি পেলে ২০১৬ সালের ওপেনিং লেভেল 1.3814 কে চ্যালেঞ্জ করবে রেসিস্টেন্স হিসেবে এবং এই লেভেলকে অতিক্রম করতে পারলে 1.4190/1.3912 অঞ্চলকে টার্গেট করবে।

ডেইলি টাইম ফ্রেমে মঙ্গলবারে প্রাইস 200-day SMA (orange – 1.3512) এর নীচে নেমে গিয়েছিল এবং বুধবারে সেই মূল্য হ্রাস আরো বর্ধিত হয়েছে। এইভাবে মূল্য হ্রাস অব্যাহত থাকলে প্রাইস খুব সহজেই সাপোর্ট লেভেল 1.3303 তে নেমে যাবে।

বিবেচনার জায়গাগুলো:

যদিও USD/CAD পেয়ারটি 200-day SMA (1.3512) কে অতিক্রম করে নীচে নেমে গেছে কিন্তু সাপ্তাহিক প্রাইস সাপোর্ট লেভেল 1.3434 তে ট্রেড করছে, যার ফলে বায়াররা 1.34 লেভেল থেকে মার্কেটে প্রবেশ করতে পারে।

অন্যদিকে 1.34 কে ব্রেক করে নীচে নেমে গেলে চার ঘন্টার Quasimodo সাপোর্ট 1.3356 কে টার্গেট করা হবে।

USD/CHF:

বুধবারেও সুইস ফ্রাঙ্কের বিপরীতে মার্কিন ডলারের মূল্য হ্রাস পেয়েছে যেহেতু মার্কিন ডলার ইনডেক্স হ্রাস পেয়ে 95.00 এর নীচে নেমে গেছে।

চার ঘন্টার টাইম ফ্রেমে সাপোর্ট হিসেবে ছিলো 0.9324, সর্বনিম্ন 0.9420 থেকে নেওয়া ট্রেন্ড লাইন সাপোর্ট এবং রাউন্ড নাম্বার 0.93 (বর্তমানে রেসিস্টেন্স)। আজকে প্রাইস 161.8% Fibonacci extension level 0.9255 তে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

বড় টাইম ফ্রেমের ক্ষেত্রে, প্রাইস সাপ্তাহিক রেসিস্টেন্স 0.9447 এর নীচে অবস্থান করছে যেখানে সাপ্তাহিক এবং ডেইলি প্রাইস হ্রাস পেয়ে সাপ্তাহিক Quasimodo সাপোর্ট 0.9255এর দিকে ধাবিত হচ্ছে।

বিবেচনার জায়গাগুলো:

চার ঘন্টার ট্রেন্ড লাইন সাপোর্ট ব্রেক হওয়ার পরে 0.9362 থেকে সেল নেওয়া ট্রেডাররা বর্তমানে লাভজনক অবস্থায় আছে, এছাড়া 0.9255 তে প্রাইস গেলে আরো লাভবান হবে তারা।

XAU/USD (GOLD):

নিরাপদ আশ্রয়ের চাহিদা বৃদ্ধি ও মার্কিন ডলারের মুল্য হ্রাসের কারণে বুধবারে গোল্ডের মূল্য টানা চার দিনের মতো বৃদ্ধি পেয়েছে এবং ২০১১ সালের পরে সর্বোচ্চ পর্যায়ে গিয়েছে, যেখানে সাপ্তাহিক প্রাইস রেসিস্টেন্স লেভেল 1882.7 কে অতিক্রম করার প্রায় কাছাকাছি অবস্থান করছে।

XAU/USD পেয়ারটির ডেইলি টাইম ফ্রেমে দেখা যাচ্ছে যে Quasimodo রেসিস্টেন্স 1841.0 কে অতিক্রম করে প্রাইস উপরে উঠে গেছে এবং উপরে উল্লেখিত সাওতাহিক রেসিস্টেন্সকে টার্গেট করেছে।

চার ঘন্টার টাইম ফ্রেমে আমরা দেখতে পাচ্ছি যে, প্রাইস সর্বোচ্চ 1779.4 থেকে নেওয়া চ্যানেল রেসিস্টেন্সকে অতিক্রম করার পরে Quasimodo রেসিস্টেন্স 1871.6 তে গিয়ে থামে। পরে দেখা যায় যে আজকে রেসিস্টেন্স লেভেলটি কিছুটা দুর্বল হয়ে গেছে ,যার ফলে প্রাইস উপরে উল্লেখিত সাপ্তাহিক রেসিস্টেন্স 1882.7 তে যাওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

বিবেচনার জায়গাগুলো:

চার ঘন্টার টাইম ফ্রেমে Quasimodo রেসিস্টেন্স 1871.6 এর উপরে ব্রেক হলে আজকে আরো বায়িং বৃদ্ধি পেতে পারে। আজকে 1882.7 কে অতিক্রম করতে পারলে ব্রেক আউট বায়ররা মার্কেটে প্রবেশ করতে পারে।

1882.7 এর উপরে ক্লোজ হলে, চার ঘন্টার Quasimodo রেসিস্টেন্স 1903.4 কে টার্গেট করা হবে।

মার্কিন-চীন রাজনৈতিক উত্তেজনার মাঝে মার্কিন ডলারের মূল্যমান হ্রাস

৮ Comments

  • অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের জন্য 29 বিলিয়ন ডলার ব্যয় করতে চলেছে ইতালি
    জুলা ২৩, ২০২০
  • ইউরোপের শেয়ার বাজার ঊর্ধ্বমুখী: জার্মানির Consumer Confidence এর ইতিবাচক প্রভাব
    জুলা ২৩, ২০২০
  • কেন্দ্রীয় ব্যাংকের স্বল্প হস্তক্ষেপে শক্তিশালী হবে ভারতীয় রুপি
    জুলা ২৩, ২০২০
  • ফান্ডামেন্টাল এনালাইসিস | ২৩শে জুলাই, ২০২০
    জুলা ২৩, ২০২০
  • ফান্ডামেন্টাল এনালাইসিস | ২৩শে জুলাই, ২০২০
    আগ ১১, ২০২০
  • কেন্দ্রীয় ব্যাংকের স্বল্প হস্তক্ষেপে শক্তিশালী হবে ভারতীয় রুপি
    আগ ২৪, ২০২০
  • ইউরোপের শেয়ার বাজার ঊর্ধ্বমুখী: জার্মানির Consumer Confidence এর ইতিবাচক প্রভাব
    আগ ২৪, ২০২০
  • অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের জন্য 29 বিলিয়ন ডলার ব্যয় করতে চলেছে ইতালি
    আগ ২৪, ২০২০

leave a reply