বাণিজ্য যুদ্ধ, পাওয়েল, তেল এবং স্বর্ণ

0
109 views
বাণিজ্য যুদ্ধ, পাওয়েল, তেল এবং স্বর্ণ
বাণিজ্য যুদ্ধ, পাওয়েল, তেল এবং স্বর্ণ

MarketDeal24.Com – বিশ্বের সর্ববৃহৎ দুই অর্থনীতির দেশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং চীনের মধ্যে বাণিজ্য চুক্তি সম্পাদন সম্পর্কিত আলোচনা পুনরায় শুরু হওয়ায় আজ বুধবার, সপ্তাহের তৃতীয় কর্মদিবসে মার্কিন পুঁজিবাজার চাঙ্গা থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। আজকের দিনে বিভিন্ন দৈনিকগুলোর দ্বারা প্রকাশিত সংবাদ ও ছিল আশাবাচক। চীন একটি আংশিক বাণিজ্য চুক্তি সম্পাদনের বিষয় তাদের সম্মতি প্রদান করেছে। অন্যদিকে, চীনের পক্ষ থেকে $10 বিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যমানের পণ্য আমদানির ও প্রতিশ্রুতি থাকছে। যা বাজারের আশাবাদকে নিয়ে যাচ্ছে অনন্য উচ্চতায়।

স্বল্পমেয়াদে বলা যায়, উভয় দেশের মধ্যে একটি বাণিজ্য চুক্তির মাধ্যমে, যদিও তথাকথিত সেই চুক্তিটি অস্থায়ী হয়, তা বিশ্ব অর্থনীতিকে চাঙ্গা করার জন্যে যথেষ্ট। তবে, অন্যদিকে ঝুঁকি ও থাকছে পূর্বের চেয়ে বেশি। একটি অস্থায়ী/অন্তর্বর্তীকালীন চুক্তি হওয়ার অবস্থায় উভয় দেশ পরস্পর পরস্পরের বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোকে কালো তালিকাভুক্ত করার বিষয়টি অব্যাহত রাখতে পারে, উভয়ের নাগরিকদের উভয়ের দেশে যাতায়াতের উপরে আরোপিত হতে পারে নানা ধরণের নিষেধাজ্ঞার, তাছাড়া, কৃষিজাত পণ্যের সরবরাহের উপরে নানা বিধিনিষেধ তো থাকছেই। তাই, সামগ্রিক অর্থে একটি চুক্তি সম্পাদিত হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত ট্রাম্প কর্তৃক যেকোনো ধরণের আকস্মিক ঘটনা ঘটানোর সম্ভাবনা জোরালো।

এদিকে, মার্কিন কেন্দ্রীয়ব্যাঙ্কের চেয়ারম্যান জেরোমি পাওয়েল কর্তৃক তার সংস্থাটির দ্বারা ট্রেজারী বন্ডের ক্রয় কার্যক্রম পুনরায় চালু করার ঘোষণায় বাজার কিছুটা হলেও চাঙ্গাভাব ফিরে পায়। তবে, তিনি চলতি মাসের ৩১ তারিখে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া বৈঠকে সুদের হারের মধ্যে পরিবর্তন আনার বিষয়ে কিছুই বলেন নি।

বিশেষজ্ঞদের মতে, স্বল্পমেয়াদে বাজারে অর্থের যোগান বৃদ্ধি করার বিষয়ে দিকনির্দেশনা আসতে পারে ফেডারেল রিসার্ভ এর আগামী বৈঠকে। এই সম্পর্কে বাজারের প্রত্যাশা হলো $200-400 বিলিয়ন ডলার মূল্যমানের অর্থ সরবরাহ। তবে, যুক্তরাষ্ট্র একটি অর্থনৈতিক মন্দাবস্থার আরো নিকটে যাওয়ার অবস্থায় পুরো দমে যদি কোয়ান্টিটিভ ইসিং শুরু হয় তাহলে আশ্চর্যের কিছু হবে না। তবে সার্বিক বিচারে এই কথা বলা অযথা হবে না যে, বিশ্বজুড়ে চলমান অর্থনৈতিক স্থবিরতা, চীনের সাথে যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য যুদ্ধ, এবং বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলগুলোতে ভূ-রাজনৈতিক অস্থিরতার দরুন আগামী দিনগুলোতে একাধিকবার সুদের হারের মধ্যে কমতি আনতে পারে যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক।

জ্বালানি তেল

ভূ-রাজনৈতিক অস্থিরতাজনিত ঝুঁকি, এবং অন্তর্বর্তীকালীন বাণিজ্য চুক্তি অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের মূল্যমানকে টেনে উপরের দিকে নিয়ে যাওয়ার ক্ষমতা রাখে। আজ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জ্বালানি তেলের মজুদের পরিমান সম্পর্কিত সাপ্তাহিক প্রতিবেদন প্রকাশিত হওয়ার কথা। বাজারের প্রত্যাশা হলো মজুদের মধ্যে সামান্য বৃদ্ধি হওয়ার বিষয়টি উঠে আসবে ঐ প্রতিবেদনে। তবে, বাজারের অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে বাজার এখন চাহিদার দিকে বেশি লক্ষ্য দিচ্ছে। বিশ্লেষণ করে বলা যায়, $52.00 প্রতি ব্যারেলের অঞ্চলে একটি গুরুত্বপূর্ণ সাপোর্ট রয়েছে এবং তা $55.50 ডলার প্রতি ব্যারেলের স্থানে আসার পূর্ব পর্যন্ত কোনো ধরণের রেসিস্টেন্স পাওয়ার সম্ভাবনা কম।

স্বর্ণ

বিশ্বের প্রধান দুই অর্থনীতির দেশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং চীনের মধ্যে একটি অন্তর্বর্তীকালীন বাণিজ্য চুক্তি হওয়ার সংবাদের উপরে বিনিয়োগের নিরাপদ আশ্রয়স্থল হিসেবে পরিচিত এই ধাতুর মূল্যমানের অবস্থা নির্ভর করে। তবে সাময়িক সময়ের জন্যে যুদ্ধ বিরতি হলেও স্বর্ণের প্রেক্ষাপট থাকছে ঝুঁকিপূর্ণ এবং মূল্যমান আগামী দিনগুলোতে থাকবে উর্ধমুখী। স্বর্ণের প্রতি সাপোর্ট হিসেবে কাজ করছে বিশ্বের বিভিন্ন কেন্দ্রীয়ব্যাঙ্কগুলোর দ্বারা চাহিদা, ভূ-রাজনৈতিক অস্থিরতাজনিত ঝুঁকি, এবং মধ্যপ্রাচ্যের রাজনৈতিক অবস্থার উপরে। আগামী সপ্তাহ পর্যন্ত যদি ঝুঁকিপূর্ণ সম্পদে বিনিয়োগের প্রতি ঝোঁকের সৃষ্টি হয় তাহলে স্বর্ণের মূল্যমান $1,465-1,480 ডলার প্রতি আউন্সের পর্যায়ে ফিরে যাবে।

IC MARKETS ব্রোকার এ একাউন্ট খুলুন – http://bit.ly/2Jd7FsO

Facebook Comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.