বৃহস্পতিবারের বাজারে লক্ষ্য রাখার মতো ৫টি বিষয় | ২৬শে নভেম্বর, ২০২০

বৃহস্পতিবারের বাজারে লক্ষ্য রাখার মতো ৫টি বিষয় | ২৬শে নভেম্বর, ২০২০ বৃহস্পতিবারের বাজারে লক্ষ্য রাখার মতো ৫টি বিষয় | ২৬শে নভেম্বর, ২০২০

MarketDeal24.Com – বৃহস্পতিবার, ২৬শে নভেম্বর অর্থনৈতিক বাজারে বিনিয়োগকারীদের যে ৫টি বিষয়ের উপর লক্ষ্য রাখতে হবে:

১. মার্কিন ডলারের মূল্য হ্রাস; ভ্যাকসিন ও প্রণোদনা ঝুকিপূর্ণ মুদ্রাগুলোর পক্ষে

আজকে ইউরোপিয়ান সেশনে প্রধান মুদ্রাগুলোর বিপরীতে মার্কিন ডলারের মূল্য হ্রাস পেয়েছে। গতকালকে মার্কিন অর্থনৈতিক রিপোর্টগুলো নেতিবাচক আসার ফলে এবং ভ্যাকসিনের সম্ভাবনা বৃদ্ধি পাওয়ায় বিনিয়োগকারীরা ঝুকিপূর্ণ মুদ্রাগুলোতে বিনিয়োগ করছে।

পূর্বাঞ্চলীয় সময় ২টা ৫০ মিনিটে মার্কিন ডলার ইনডেক্স, যা কিনা অন্যান্য মুদ্রাগুলোর বিপরীতে মার্কিন ডলারের মূল্য নির্ধারণ করে, তা 0.1% হ্রাস পেয়ে 91.892 তে অবস্থান করছে, যা কিনা দুই মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন পর্যায়।

২০২১ সালের অর্থনৈতিক পূর্বাভাস অনুযায়ী মার্কিন অর্থনীতি পুনরুদ্ধার হওয়ার খবরে এবং মার্কিন বেকারত্বের দাবী বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রনোদনার সম্ভাবনা জোরদার হয়েছে। এর পাশাপাশি কয়েকটি কোম্পানি ভ্যাকসিন উন্নয়নে সফলতার খবর প্রকাশ করেছে। সব মিলিয়ে ঝুকিপূর্ণ সম্পদগুলোর চাহিদা বৃদ্ধি পেয়েছে।

Forexmart

২. ইউরোপিয়ান শেয়ার বাজার স্থিতিশীল; জার্মানীতে কিছু নিষেধাজ্ঞা শিথিল

ইউরোপিয়ান শেয়ার বাজারে আজকে প্রায় স্থিতিশীল অবস্থা বিরাজ করছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে থ্যাংকসগিভিং উপলক্ষে ছুটির কারণে বাজারে লেনদেন কিছুটা কম হয়েছে।

পূর্বাঞ্চলীয় সময় ৩টা ৫৫ মিনিটে জার্মানি এর DAX প্রায় স্থিতিশীল ছিল, যেখানে ফ্রান্সের CAC 40 ০.১% বৃদ্ধি পেয়েছে এবং যুক্তরাজ্যের FTSE ০.৩% হ্রাস পেয়েছে।

যুক্তরাজ্যের অর্থমন্ত্রী রিসি সুনাক বুধবারে জানিয়েছে যে এই বছরে ব্রিটেনের অর্থনীতি ১১% পতনের সম্মুখীন হবে, যেখানে ৪০০ বিলিয়ন পাউন্ড ঋণ নেওয়ার কথা জানিয়েছেন তিনি।

এদিকে করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে জার্মানীতে যে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছিলো তা কিছু কিছু শিথিল করা হচ্ছে। প্রয়োজনীয় ব্যাবসার ক্ষেত্রে কিছু নিশেধাজ্ঞা কমানো হলেও অনেক কিছুটে মার্চ পর্যন্ত নিষেধাজ্ঞা অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছে জার্মান সরকার।

৩. ব্রেক্সিট চুক্তিতে বিলম্ব; আগামী সপ্তাহে হওয়ার সম্ভাবনা

ব্রিটেনের অর্থমন্ত্রী বৃহস্পতিবারে বলেছেন যে, ব্রিটেন ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন এর মধ্যে ব্রেক্সিট চুক্তি হতে পারে এবং কিরকম চুক্তিপত্র তৈরি হচ্ছে তা আমরা বুঝতে পেরেছি, কিন্তু লন্ডন কোনো একপাক্ষিক চুক্তিতে স্বাক্ষর করবে না।

ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন থেকে বের হওয়ার ক্ষেত্রে ব্রিটেনের হাতে আর মাত্র ৫ সপ্তাহ রয়েছে এবং দুইপক্ষই এর মধ্যে একটি বাণিজ্য চুক্তি করতে চাচ্ছে যা কিনা তাদের পাঁচ বছরের ব্রেক্সিট সম্পর্কিত সমস্যাগুলোর সমধান করবে।

অর্থমন্ত্রী রিসি সুনাক বলেন, “দুই পক্ষের ইতিবাচক ইচ্ছা ও মনোভব এর মাধ্যমে একটি চুক্তিতে আমরা পৌছাতে পারি, এবং কি ধরনের চুক্তি হতে যাচ্ছে তা আমাদের কাছে পরিস্কার।”

সুনাক আরো বলেন, “যদিও চুক্তি হওয়া দুই পক্ষের জন্য জরুরী, তবুও এই চুক্তির জন্য যেকোনো কিছু করাটা ঠিক হবে না। এটা করা ঠিক হবে না।”

আলোচনার সাথে সম্পৃক্ত একজন জানায় যে, এই সপ্তাহে চুক্তি হওয়ার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে, চুক্তি হলেও পরের সপ্তাহে হতে পারে।

৪. নতুন চুক্তির মধ্যে ২০২০ সালে আমেরিকার সাথে চীনের ২৬% লেনদেন

জুলাই মাস হতে চীন যুক্তরাষ্ট্র থেকে ক্রুড অয়েল, প্রোপেইন এবং তরল প্রাকৃতিক গ্যাস আমদানি বৃদ্ধি করেছে। কিন্তু আমেরিকার সাথে হওয়া ফেজ ১ চুক্তিতে ২০২০ সালে যে টার্গেট ছিলো তা থেকে এখনো অনেক দূরে রয়ে গেছে অক্টোবর পর্যন্ত আমদানি এর রিপোর্ট অনুসারে।

২০২০ সালের প্রথম ১০ মাসে আমেরিকা থেকে চীন ৬.৬১ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের ক্রূড অয়েল, এলএনজি, প্রোপেইন, বুটেন এবং অন্যনা জ্বালানি পণ্য ক্রয় করেছে, যা কিনা তাদের ২৫.৩ বিলিয়ন ডলারের টার্গেটের মাত্র ২৬%।

বছরের প্রথম দিকে দুই পক্ষের মধ্যে কিছুটা বিরোধের কারণে লেনদেন কমে গিয়েছিলো, কিন্তু বছরের দ্বিতীয় ভাগে এসে মার্কিন জ্বালানি পণ্য আমদানি বৃদ্ধি করেছে চীন। অক্টোবর থেকে বাকি তিনমাসে টার্গেটের অনেকটা কাছাকাছি যেতে পারবে বলে অনেকে ধারনা করছে।

৫. দশ দিনের মধ্যে সর্বনিম্ন পর্যায়ে Bitcoin এর মূল্য

বৃহস্পতিবারে Bitcoin এর মূল্য দশ দিনের মধ্যে সর্বনিম্ন পর্যায়ে নেমে গিয়েছে, এর পাশাপাশি অন্যান্য ডিজিটাল মুদ্রাগুলোরও মূল্য হ্রাস পেয়েছে।

বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রিপ্টোকারেন্সি Bitcoin এর মূল্য প্রায় ১৩% হ্রাস পেয়ে $১৬,৩১৭ তে নেমে এসেছে, যা কিনা গতদিন তিন বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ $১৯,৫২১ এ গিয়েছিলো।

Bitcoin এর মূল্য এই বছর ১৫০% বৃদ্ধি পেয়ে সর্বোচ্চ মূল্য $১৯,৬৬৬ এর কাছাকাছি চলে গিয়েছিলো। এর মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ার ফলে ঝুকিপূর্ণ সম্পদের মূল্যও বৃদ্ধি পেয়েছে এবং মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

Bitcoin এর ১২ বছরের ইতিহাসে যেমন অনেক বেশি মূল্য বৃদ্ধি হয়েছে তেমনই অল্প সময়ের মধ্যে অনেক বেশি পরিমানে মূল্য হ্রাসও হয়েছে। এবং এই মার্কেট সাধারণ মার্কেট থেকে অনেকটাই অস্থিতিশীল।

leave a reply