মঙ্গলবার বাজারে লক্ষ্য রাখার মতো ৩ টি বিষয় | ২১শে জুলাই, ২০২০

মঙ্গলবার বাজারে লক্ষ্য রাখার মতো ৩ টি বিষয় | ২১শে জুলাই, ২০২০ মঙ্গলবার বাজারে লক্ষ্য রাখার মতো ৩ টি বিষয় | ২১শে জুলাই, ২০২০

MarketDeal24.Com – ২১শে জুলাই, মঙ্গলবার বিনিয়োগকারীদের জন্য বাজারে লক্ষ্য রাখার মতো ৩ টি বিষয়।

১. S&P এর প্রযুক্তি শেয়ার ঊর্ধ্বমূখী

S&P 500 সেক্টরের ১১টির মধ্যে ৮টি শেয়ার সোমবার Dow Jones Industrial Average এর অর্ধেকেরও বেশি শেয়ারের সাথে লেনদেন করেছে। তবুও এর প্রধান সূচকগুলি কিছুটা উপরের দিকে এগিয়ে গেছে। যেমন Amazon.com Inc (NASDAQ:AMZN), Microsoft Corporation (NASDAQ:MSFT) ও Google’s Alphabet (NASDAQ:GOOGL) Inc Class C (NASDAQ:GOOG) এবং Tesla Inc (NASDAQ:TSLA) ঊর্ধ্বমুখী অবস্থায় ছিল।

এদিকে বড় প্রযুক্তি শেয়ারগুলি আরো ঊর্ধ্বমূখী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কেননা বাজারে তাদের প্রভাব বৃদ্ধি পাচ্ছে। এক দশক আগে মাত্র 10% এর তুলনায় শেয়ারগুলো S&P 500 এর বাজার ক্যাপের 20% এরো বেশি অংশ তৈরি করে দিয়েছে।

তাদের এই আধিপত্য একটি স্ব-পরিপূর্ণ ভবিষ্যদ্বাণী হয়ে উঠেছে। এবং S&P কে এর প্রাক-করোনা লকডাউন লেভেলে আবার ফিরে আসতে সহায়তা করেছে।

Forexmart

২. করোনা ভ্যাকসিনের সুসংবাদ বায়োটেকগুলোর শেয়ারের মূল্যমান বাড়িয়ে তুলছে

Pfizer Inc (NYSE:PFE) এবং AstraZeneca PLC ADR (NYSE:AZN) এর শেয়ার করোনা ভাইরাস ভ্যাকসিনের অগ্রগতি সম্পর্কে ইতিবাচক সংবাদের কারণে সোমবার ঊর্ধ্বমূখী অবস্থায় ছিল। সেই সাথে বায়োটেক শেয়ারগুলো সবার নজরে রয়েছে।

সংবাদ প্রকাশের পর Pfizer Inc (NYSE:PFE) 1% বৃদ্ধি পেয়েছে এবং এর অংশীদার  Biontech Se (NASDAQ:BNTX) এর শেয়ার করোনা ভাইরাস ভ্যাকসিনের প্রাথমিক পজিটিভ ডেটা প্রকাশের পরে 5% এর বেশি বেড়েছে। 

এদিকে Astra এর শেয়ারগুলি 4% কমেছে। তবে তার আগে এর অংশীদার অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় তাদের ভ্যাকসিনের পরীক্ষা থেকে ভাল প্রাথমিক ফলাফল পেয়েছে বলে ঘোষণা করেছে।

ব্রিটিশ বায়োটেক Synairgen (LON:SYNG) বলেছে যে, তাদের পরীক্ষামূলক ওষুধটি করোনা ভাইরাসের লক্ষণসমূহকে হ্রাস করে। এই সংবাদ প্রকাশের পরে এর শেয়ার 590% বৃদ্ধি পেয়ছে। অন্যদিকে Gilead (NASDAQ:GILD) Science, রেমডেসিভির নামে আরেকটি করোনার চিকিৎসা আবিষ্কার করেছে। এর শেয়ার 0.7% বৃদ্ধি পেয়েছে।

এছাড়া Moderna Inc (NASDAQ:MRNA) সহ বেশ কয়েকটি বায়োটেক কোম্পানীর শেয়ার 12% এরো বেশি হ্রাস পেয়েছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা 3.5 মিলিয়নের ওপরে এবং মৃতের সংখ্যা 140,000 জনেরো বেশী। 

৩. ব্যবসায়ীদের চাহিদা বৃদ্ধির সাথে সাথে তেলের মূল্য 40 ডলারের ওপরে

অপরিশোধিত তেলের WTI Futures এর মূল্য ব্যারেল প্রতি 40 ডলারের কাছাকাছি অবস্থান করছে। ব্যাবসায়ীদের কাছে চাহিদা বৃদ্ধির কারণে তেলের মূল্যমান বৃদ্ধি পাচ্ছে।

এদিকে গত সপ্তাহে আমেরিকান পেট্রোলিয়াম ইনস্টিটিউট (API) আগের সপ্তাহে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মজুদ থেকে অপ্রত্যাশিতভাবে 8 মিলিয়ন ব্যারেলের বড় হ্রাস দেখিয়েছিল। তবে আসন্ন রিপোর্টে মজুদের পরিমাণ আবার বৃদ্ধি পেতে পারে বলে মনে করছেন সবাই।যদিও সেই মজুদ 1 মিলিয়ন ব্যারেলের বেশী বাড়বে না বলেই বলছেন বিশ্লেষকরা।

অপরিশোধিত তেলের শেয়ার বিনিয়োগকারীদের জন্য একটি আশ্রয়কারী হতে পারে। কারণ চাহিদা বাড়ার সাথে সাথে মজুদের পরিমাণ হ্রাস পাবে এবং মূল্য বৃদ্ধি পাবে।

মার্কিন ডলার নিম্নমুখী; করোনা ভ্যাকসিন নতুন করে আশা দেখাচ্ছে

leave a reply