মুদ্রার সুদের হারের পার্থক্য অনুযায়ী ট্রেড করুন

মুদ্রার সুদের হারের পার্থক্য অনুযায়ী ট্রেড করুন মুদ্রার সুদের হারের পার্থক্য অনুযায়ী ট্রেড করুন

কম সুদের হার বিশিষ্ট দেশের মুদ্রার বিনিময়ে অধিক সুদের হার বিশিষ্ট দেশের মুদ্রা ক্রয় করলে আপনি লাভবান হতে পারেন । আর এই লাভের অংশ আসবে দুই দেশের মধ্যে বিদ্যমান সুদের হারের এই তারতম্যের কারণে । একে বলা হয় interest rate differential । এবং এই জাতীয় লেনদেনকে বলা হয় carry trade ।

Cross currency পেয়ারগুলো এমন অনেক সুযোগ দেয় যেখানে সুদের হারের পার্থক্য অনেক বেশি । নিম্নে একটি চার্টের মাধ্যমে বিষয়টি তুলে ধরা হলো ।

উপরের উদাহরণে লক্ষ্য করুন যে AUD/JPY পেয়ারটি একটি uptrend এ আছে । আপনি যদি এই পেয়ারের একটি long position নিতেন তাহলে অনেক লাভে থাকতেন । এর পিছুনে অন্যতম কারণ হলো দুই দেশের মধ্যেকার সুদের হারের পার্থক্য । ২০০২ থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত Reserve Bank of Australia সেই দেশে সুদের হার বৃদ্ধি করেছে ৬.২৫% এবং অন্যদিকে, জাপানের কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক তা রেখেছে মাত্র ০% এ।

তাই সুদের হারের এই ধরণের পার্থক্য বিশিষ্ট মুদ্রাগুলোতে long position নিলে দীর্ঘমেয়াদে লাভে থাকা যায় ।

Forexmart

ঘোলা currency cross ট্রেড করার সময় সাবধান থাকুন

আমরা পূর্বেই জেনেছি যে, cross Currency পেয়ারগুলোতে USD থাকেনা । আর এই ধরণের cross Currency পেয়ারগুলোর মধ্যে সবচেয়ে তরল হলো Euro এবং Yen এর cross । কিন্তু বেশিরভাগ cross Currency পেয়ারগুলোতে Euro এবং Yen ও থাকে না । তাই ওই সকল পেয়ারগুলোকে বলে Obscure Currency Crosses |

কয়েকটি Obscure Currency Crosses হলো AUD/CHF, AUD/NZD, CAD/CHF, GBP/CHF|

এই চারটি কারেন্সী পেয়ারের ট্রেড করা অনেক কঠিন এবং ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে যদি আমরা এইগুলোকে Euro এবং Yen আছে এইরকম cross এ ট্রেড করার কথা চিন্তা করি । যেহেতু খুব কম ট্রেডাররা এই cross গুলোতে লেনদেন করে তাই লেনদেনের পরিমান এবং তারল্য উভয়েই কম থাকে এই চারটি cross এ । তারল্যের অভাবে এই সকল cross এর মূল্য অনেকটা অস্থির বা volatile হয়ে যেতে পারে ।

নিম্নে AUD/CHF, GBP/CHF কারেন্সী পেয়ারের একটি চার্ট দেয়া হলো ।

উপরের চার্টে স্পষ্টই দেখে যাচ্ছে যে মূল্যের উঠানামা খুবেই ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে । এই ধরণের পরিস্থিতিতে কোনো বিশ্লেশণ কাজে না আসার সম্ভাবনাও দেখা দেয় । তাই সাবধান!

Cross currency পেয়ারে লেনদেনের সময়ে অর্থনীতির মৌলিক বিষয়গুলোকে যেভাবে ব্যবহার করবেন

কল্পনা করুন এমন এক পরিস্থিতির যেখানে হয়তো ধরুন Australia থেকে সেই দেশের অর্থনীতির ব্যাপারে একটি ভালো খবর এসেছে । এই অবস্থায় আপনি হয়তো AUD/USD পেয়ারটি ক্রয় করতে চাইবেন । কিন্তু পরে শুনলেন যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতিও ভালো যাচ্ছে । এই অবস্থায় AUD/USD পেয়ারের price action বা মূল্যের গতি হবে flat বা চ্যাপ্টা । তাই এই অবস্থায় কোনো কারেন্সী পেয়ারের বিনিয়োগ করার জন্যে আপনার এমন এক দেশের মুদ্রা দরকার যেই দেশের অর্থনীতি Australia এর তুলনায় ভালো করছে না ।

আপনি হয়তো একটু গবেষণা করলেন এবং খুঁজে বের করলেন যে এই মুহূর্তে জাপানের অর্থনীতি ভালো করছে না । তাই আপনি সিদ্ধান্ত নিলেন যে আপনি AUD/JPY পেয়ারটিতে বিনিয়োগ করবেন।

উপরে দেয়া চার্টে AUD/JPY এবং AUD/USD কারেন্সী পেয়ারের পারস্পরিক আপেক্ষিক শক্তি তুলনা করুন । এই ধরণের তুলনা থেকে আপনি বুঝতে পারবেন যে কোন দুর্বল মুদ্রার বিপরীতে ট্রেড করতে হবে ।

leave a reply