ADVERTISING

যোগানের ঘাটতির বিপরীতে চাহিদা হ্রাস পাওয়ায় জ্বালানি তেলের মূল্যমানে অবনতি

যোগানের ঘাটতির বিপরীতে চাহিদা হ্রাস পাওয়ায় জ্বালানি তেলের মূল্যমানে অবনতি যোগানের ঘাটতির বিপরীতে চাহিদা হ্রাস পাওয়ায় জ্বালানি তেলের মূল্যমানে অবনতি

MarketDeal24.Com – আজ মঙ্গলবার, সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবসে বিশ্ববাজারে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের মূল্যমানে পতন লক্ষ্য করা যাচ্ছে। যোগানের ঘাটতির বিপরীতে চাহিদার পরিমান হ্রাস পাওয়ায় জ্বালানি তেলের মূল্যমানের এই অবস্থা।

আজ জিএমটি সময় ০৩১০ মিনিটে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের সবচেয়ে জনপ্রিয় সূচক Brent crude futures (LCOc1) তার মূল্যমানে পূর্বের চেয়ে ¢18 সেন্টস বা 0.3% হারে হ্রাস পেয়ে হয়েছে $58.39 মার্কিন ডলার প্রতি ব্যারেল। অন্যদিকে, U.S. West Texas Intermediate (WTI) (CLc1) futures তার মূল্যমানে পূর্বের চেয়ে ¢12 সেন্টস বা 0.2% হারে হ্রাস পেয়ে হয়েছে $54.81 মার্কিন ডলার প্রতি ব্যারেল।

পরিস্থিতি সম্পর্কে VM Markets Pte Ltd এর ব্যবস্থাপনা অংশীদার স্টিভেন ইনন্স বলেন, “যদিও প্রেক্ষাপটের অবস্থা খুব একটা ভালো নয় তবে খুব শিঘ্রীই সৌদি আরব আন্তর্জাতিক অঙ্গনে জ্বালানি তেলের মূল্যকে উপরে তোলার জন্যে প্রচেষ্টা চালাবে।”

সৌদি আরব, যা বিশ্বের জ্বালানি তেলের উৎপাদনকারী দেশগুলোর সংগঠন Organization of the Petroleum Exporting Countries বা OPEC এর নেতৃত্বে রয়েছে, তা গত সপ্তাহে ঘোষণা করে যে, আগস্ট এবং সেপ্টেম্বর মাসে দেশটির পরিকল্পনা হলো অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের রপ্তানির পরিমান 7 মিলিয়ন ব্যারেল্স এর নিচে রাখা। যা অন্যদিকে, বিশ্বজুড়ে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের জমে যাওয়া মজুদকে কমিয়ে আনবে।

Forexmart
এদিকে, অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের উৎপাদনকারী অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দেশ কুয়েত এর পক্ষ থেকে জানানো হয় যে, তারা OPEC+ এর উৎপাদনে স্বেচ্ছায় কমতি আনার সিদ্ধান্তকে সমর্থন করেন। উল্লেখ্য, OPEC এবং তার সহযোগী রাষ্ট্রগুলোর সংগঠন, যা একত্রে OPEC+ নামে পরিচিত, তা সাম্প্রতিক সময়ে ঘোষণা দেয় যে, তারা অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের উৎপাদন দৈনিক 1.2 মিলিয়ন ব্যারেল্স হারে কমাবে।

অন্যদিকে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ফ্রিকিং নামক এক নতুন পদ্ধতিতে জ্বালানি তেলের উৎপাদন অব্যাহত থাকায়, তা আবার OPEC+ এর সিদ্ধান্তের প্রভাব বাজারের উপরে কতটুকু পড়বে তার ব্যপারে অনিশ্চয়তার সৃষ্টি করেছে। বিশেষজ্ঞদের ধারণা হলো, আগামী দিনগুলোতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃক শেল পদ্ধতিতে উৎপাদন 85,000 ব্যারেল্স প্রতিদিনের হারে বৃদ্ধি পাবে, যা চলমান থাকবে সারা সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত।

বিশ্বজুড়ে প্রধান দুই অর্থনীতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং চীনের মধ্যে চলমান বাণিজ্য যুদ্ধের কারণে একটি অর্থনৈতিক মন্দ সৃষ্টি হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে, ফলে হ্রাস পেয়েছে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের চাহিদা।

এই সম্পর্কে ইনন্স বলেন, “সৌদি আরব কর্তৃক কোনো ধরণের উদ্যোগ বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের মূল্যমানকে স্থিতিশীল করলেও তা $60 মার্কিন ডলার প্রতি ডলারের পর্যায়কে ছাড়াবে না।”

IC MARKETS ব্রোকার এ একাউন্ট খুলুন – http://bit.ly/2Jd7FsO

leave a reply