Forex Trading | নতুন ফরেক্স ট্রেডারদের জন্য ৫টি পুরানো অথচ অতি কার্যকরী টিপস

Forex Trading | নতুন ফরেক্স ট্রেডারদের জন্য ৫টি পুরানো অথচ অতি কার্যকরী টিপস Forex Trading | নতুন ফরেক্স ট্রেডারদের জন্য ৫টি পুরানো অথচ অতি কার্যকরী টিপস

MarketDeal24.Com – Forex Trading | ফরেক্স ট্রেডিং এ ধারাবাহিকতা বজায় রেখে অর্থ উপার্জন করতে চাইলে কিছু পরীক্ষিত, নিশ্চিত এবং পুরানো পদ্ধতি নিয়মিতভাবে আয়ত্ত করে চলতে হবে।

নিচে তেমনই কিছু টিপস দেয়া হলো যা প্রত্যেক ট্রেডারের কাজে আসবে:

১. কীভাবে লস কমাবেন তা শেখার চেষ্টা করুন

ফরেক্স ট্রেডিং এ সাফল্যের মূলসূত্র মুনাফা অর্জনের ভিতর নিহিত নেই। বরং এখানে সাফল্যের পুরোটাই নির্ভর করে লসকে এড়িয়ে চলার ওপর।

কীভাবে লসের সম্ভাবনাগুলোকে এক এক করে মুছে ফেলা যায় এবং লস ট্রেড থেকে কীভাবে মূল পুঁজি তুলে নিয়ে আসা যায় তাই হবে যে কোনো ট্রেডিং এ আপনার মূল লক্ষ্য।

Forexmart

লস কমাতে অনেক ট্রেডার একটা নির্দিষ্ট পরিকল্পনা ধরে এগোয় যেখানে পরিস্থিতির সাথে পরিকল্পনায় পরিবর্তন আনার তেমন সুযোগ থাকে না।

লসকে সীমিত পরিসরে নিয়ে আসতে হবে, এ বিষয়ে সন্দেহের কোনো অবকাশ নেই। তবে তার সঙ্গে সকল পজিশন যাচাই করে দেখতে হবে। কেননা ট্রেডিং ক্যাপিটাল রিস্ক সীমিত পর্যায়ে না থাকলে একসময় আপনি আর ট্রেডিং করতে পারবেন না।

২. কোনো পজিশন খোলার আগে নিজের সীমাবদ্ধতা জানুন

প্রতিটি আলাদা আলাদা ট্রেডে যেমন স্টপ প্রদান করাটা অবশ্য কর্তব্য ঠিক তেমনই আপনি সর্বোচ্চ কতটুক লস একটি ট্রেডে নিতে পারবেন সেটি জানাও খুবই জরুরী। তবে কাজ কিন্তু এখানেই শেষ নয়। এতকিছুর মধ্যেও আপনার মোট ট্রেডিং ক্যাপিটাল কীভাবে সামলাবেন এবং যোগাড় করবেন তার চিন্তা মাথায় থাকতে হবে।

নিয়মটা খুবই সোজা যতটুক অর্থ লস করতে পারবেন তার চেয়ে বেশি ব্যালেন্স নিয়ে কখনও ট্রেড করবেন না। এছাড়াও পর্যাপ্ত পরিমাণে ক্যাশ রিজার্ভ রাখবেন। আপনার পজিশনের আকৃতি এবং তার জন্য কী পরিমাণ অর্থ দরকার তা মূল্যায়ন করবেন। আরেকটি বিষয় আপনাকে নিশ্চিত করতেই হবে, আর তা হলো ট্রেডিং এর জন্য যে পুঁজিটা আপনি সংগ্রহ করবেন তা দিয়ে আর অন্য কিছুই করা যাবে না অর্থাৎ সেই অর্থ অন্য কোথাও ব্যয় করা যাবে না।

এছাড়া মোট লসের সীমা কতটুকু তাও নির্ধারণ করে নেয়াটা খুবই জরুরী। এবং সেটি নির্ধারণ করবেন প্রতি মাসের শুরুতে। যখন লসের সর্বোচ্চ সীমাটুকু অতিক্রম করবেন তখনই থামিয়ে দিতে হবে ট্রেড। অবশ্য আপনার লস যদি মুনাফার চেয়ে টানা বাড়তেই থাকে তাহলে ট্রেড করা থামিয়ে দিন। কয়েক দিনের জন্য পিছু হটে যান, বিরতি নিন।

আবার যখন ট্রেডিং এর জন্য প্রস্তুত হবেন তখন আপনার ট্রেডিং কৌশলসমূহ মূল্যায়ন করুন। ফিরে তাকান নিজের সাম্প্রতিক ট্রেডগুলোর দিকে। এমনটি করবেন কোথায় কোথায় নিজের ভুল হয়েছে তা দেখার জন্য এবং ভুল থেকে শিক্ষা নেয়ার জন্য। এসবের পর আবার সামনের দিকে অগ্রসর হোন। যখন আবার মুনাফার দেখা পাবেন তখন সেখান থেকে কিছু একটি ছোটখাট রিজার্ভ অ্যাকাউন্টে জমা রাখুন। এই কাজটি করবেন যদি ভবিষ্যতে মার্কেটে কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতির সৃষ্টি হয় সেই পরিস্থিতির কথা চিন্তা করে।

৩. নিজের ট্রেডিং কৌশল সম্পর্কে ভালো করে জানুন এবং সে সব কৌশলই অবলম্বন করুন

একটি নির্দিষ্ট কৌশলের আগাগোড়া সবকিছু না জানলে আপনি কখনোই সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন না। পৃথিবীতে সেরা ট্রেডার তারাই যারা তাদের নিজেদের কৌশলের সীমাবদ্ধতা সম্পর্কে খুব ভালো করে জানে।

এমন সব পজিশনের দিকে নজর রাখুন যেগুলো আপনার ট্রেডিং পদ্ধতি এবং সামর্থ্যের সাথে খাপ খায়। ঝুঁকি-প্রোফিট এর অনুপাত ঠিকমতো বুঝে সেই অনুযায়ী কাজ করুন। কোনো আধুনিক কিংবা জটিল পদ্ধতি অনুসরণের দরকার নেই। কারণ সে সব পদ্ধতি আপনি সম্পূর্ণ নির্ভুলভাবে বাস্তবায়ন করতে পারবেন না।

যদি কোনো কৌশল আপনার অর্থনৈতিক অবস্থার সাথে না যায় তাহলে সেই কৌশল পরিহার করুন। কৌশলটি যত ভালো এবং উৎকৃষ্টই মনে হোক না কেন সবসময় তা এড়িয়ে চলবেন। কারণ সেই কৌশল বাস্তবায়নের সঙ্গতি আপনার নেই। তবে এটাও ঠিক, প্রত্যেক কৌশলের কিছু না কিছু ঝুঁকি থাকেই।

মূল বিষয়টি হলো লাভজনক পদ্ধতির একটি সংগ্রহ আপনার কাছে থাকা দরকার। শুধুমাত্র সেইসব পদ্ধতি আর কৌশল অবলম্বন করবেন যেগুলো মার্কেটের পরিস্থিতির সাথে যায় এবং প্রত্যেকটা ট্রেড সর্বোচ্চ সম্ভাবনার পুরোটা ঢেলে দিয়ে সম্পন্ন করবেন।

৪. ধৈর্য ধরার কৌশল শিখুন

যেসব ট্রেড দিয়ে আপনার শুরুটা হবে সেগুলোর গুরুত্বের কোনো শেষ নেই। সেখানে নিজের সর্বোত্তম বিশ্লেষণটি প্রয়োগ করবেন এবং নিজের বিচার বিবেচনাবোধের পুরোটা কাজে লাগাবেন। আগে থেকেই সম্ভাব্য সকল ট্রেড মূল্যায়ন করে নেয়াটা খুবই জরুরী। এছাড়া ট্রেডে প্রবেশের সঠিক সময় কোনটা তা জানতে হলে আপনার সমৃদ্ধ জ্ঞান থাকতে হবে। চার্টিং টেকনিক এবং মার্কেট পরিস্থিতি দুটো নিয়েই তখন আপনার স্পষ্ট ধারণা থাকতে হবে।

শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সবটাই একজন ট্রেডারকে ভাল করে বুঝতে হয় কেননা একটি সফল ট্রেড এক্সিট আপনি তখনই করতে পারবেন যখন ট্রেডে এন্ট্রির শুরুটা আপনি সঠিকভাবে করতে পারবেন। যারা অতিরিক্ত ট্রেডিং করেন তারা অতীতের ভুলগুলো থেকে শিক্ষা নেবেন। অসাবধানতার বশবর্তী হয়ে আর কোনো ট্রেড করা যাবে না তা বুঝতে হবে এবং প্রতিটি ট্রেডে প্রবেশের আগে নিজের আবেগকে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে।

৫. নিজের পরিকল্পনায় স্থির থাকতে অধ্যবসায়ী হোন

সাফল্য শুধুমাত্র তখনই আপনার কাছে এসে ধরা দেবে যখন পরিশ্রম, নির্ভুল বিবেচনা এবং ধৈর্য এই তিনটি উপাদানকে একসাথে করতে পারবেন। অনেক ট্রেডারই আছেন যারা কয়েকটা ট্রেডে লোকসান করলেই হাল ছেড়ে দেয়। কোনো কিছু শেখা এবং বোঝা উপরন্তু সেই শিক্ষা কাজে লাগিয়ে বাস্তবায়ন করার আগেই এভাবে হাল ছেড়ে দেয় অনেকে। কিন্তু তারা ভুলে যায় এসবই লাভজনক ট্রেডিং এর পূর্বশর্ত।

Forex Top or Bottom | টপ এবং বটম ট্রেডে যে ৩টি বিষয় মাথায় রাখতে হবে

Forex Trading Forex Trading Forex Trading

leave a reply